ব্যাটল অফ পিয়ংইয়ং: কোরিয়ার দখল নিতে চীন-জাপানের যুদ্ধ

“দ্যা ব্যাটল অফ পিয়ংইয়ং” অথবা ১৮৯৪ সালের পিয়ংইয়ং এর যুদ্ধ ছিলো প্রথম সাইনো-জাপানিজ যুদ্ধের দ্বিতীয় বৃহৎ যুদ্ধ। কোরিয়ার নিয়ন্ত্রণকে কেন্দ্র করে চীন ও জাপানের মধ্যে সংঘটিত হয় এই যুদ্ধ। এ কারণে একে সাইনো-জাপানিজ ওয়ার নামে অভিহিত করা হয়। পিয়ংইয়ং এর এ যুদ্ধ ১৮৯৪ সালের ১৫ সেপ্টেম্বর কোরিয়ার পিয়ংইয়ং অঞ্চলে সংঘটিত হয়। জাপানের মেইজি বংশের রাজা এবং চীনের চিং রাজবংশের মধ্যে দীর্ঘদিন ঘরেই কোরিয়ার দখল নিয়ে দ্বন্দ্ব চলে আসছিলো। এই দ্বন্দ্বই পরবর্তীতে রূপ নেয় সশস্ত্র যুদ্ধে। 

এই যুদ্ধের আগে শেংওয়ান এর যুদ্ধেও জাপানি বাহিনীর কাছে পরাজিত হয় চীনারা। এরপর চীনা বাহিনী নতুনভাবে যুদ্ধের প্রস্তুতি নিতে থাকে। এবার তারা ঘাঁটি তৈরি করে কোরিয়ার উত্তরাঞ্চলের শহর পিয়ংইয়ং এ। দুইভাগে আসা চীনা সৈন্যরা সেনাপতি ইয়ে ঝিকাও এর নেতৃত্বে পিয়ংইয়ং এ একত্র হয়। সেখানে নিয়মিত তাদের প্রশিক্ষণ চলতে থাকে। পাশাপাশি শহর জুড়ে যুদ্ধের জন্য নানাবিধ প্রস্তুতিও নেয়া হয়। আধুনিক অস্ত্রশস্ত্রে সজ্জিত চীনারা শেংওয়ান এর যুদ্ধে হারের প্রতিশোধ নিতে একেবারে মুখিয়ে ছিলো বলা যায়। 

অন্যদিকে শেংওয়ান জয়ের পর নতুন করে আরো ৮ হাজার সৈন্য যুক্ত হয় জাপানি সেনাপতি জেনারেল ওশিমার ব্রিগেডে। এদের মধ্য থেকে ৭ হাজার সৈন্যকে সিউল এবং শেমুলপো অঞ্চলে মোতায়েন করে ওশিমা। ফলে কোরিয়ার দক্ষিণাঞ্চল ও কেন্দ্রের পুরো নিয়ন্ত্রণ চলে যায় জাপানি সেনাদের কাছে। কিন্তু কোরিয়ার উত্তরাঞ্চল তখনো চীনাদের দখলে থাকায় জাপানিরা আবারও যুদ্ধের প্রস্তুতি নিতে থাকে। তাই আরো সৈন্য নিয়ে আসা হয় জাপানী ব্রিগেডের জন্য। ফলে পুনরায় বেজে ওঠে যুদ্ধের দামামা। 

১৮৯৪ সালের ৪ঠা আগস্ট চীনা জেনারেল ইয়ে ঝিকাও এর নেতৃত্বে ১৩ হাজার থেকে ১৫ হাজার সৈন্য পিয়ংইয়ং এ এসে উপস্থিত হয়। সেখানকার পুরনো শহর রক্ষা দেয়াল পুনঃসংস্কার করে চীনারা। সৈন্যসংখ্যা ও মজবুত প্রতিরক্ষা ব্যবস্থার ওপর নির্ভর করে চীনারা ধরেই নিয়েছিলো যুদ্ধের ফলাফল এবার তাদের পক্ষেই আসছে। সেপ্টেম্বরের ১৫ তারিখ জাপানের যুবরাজ ইয়ামাগাতা আরিতোমোর নেতৃত্বাধীন সেনাবাহিনী বিভিন্ন দিক থেকে পিয়ংইয়ং শহর ঘিরে ফেলে। সেদিন সকাল হতেই তারা আক্রমণ চালায় শহরের উত্তর ও উত্তর-দক্ষিণ অংশ বরাবর। এই অংশে চীনাদের পাহারা ছিলো সবচেয়ে কম। ফলে দ্রুত সেখানে নিজেদের আধিপত্য বিস্তার করে ফেলে জাপানী সৈন্যরা। বাকী চীনা সৈন্যরা এই অংশে এসে প্রতিরোধ গড়তে গড়তেই পেছন দিক থেকে অবশিষ্ট জাপানী সৈন্যরা এসে আক্রমণ চালায়, যাদের খবর জানতোই না চীনারা। ফলে শক্ত প্রতিরোধ ব্যবস্থা থাকা সত্ত্বেও জাপানি সেনাদের কৌশলের কাছে হেরে যেতে হয় তাদের। এভাবেই শেষ হয় পিয়ংইয়ং এর সেই যুদ্ধ। 

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin

ইতিহাস, রাজনীতি, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি, খেলাধুলা, বিনোদন সহ সমসাময়িক যেকোন বিষয়ে লেখা পাঠাতে পারেন আপনিও

Latest Articles

মিউনিখ চুক্তি: হিটলারের আগ্রাসন ঠেকানোর ব্যর্থ প্রচেষ্টা

১৯৩০ দশকের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি আন্তর্জাতিক চুক্তি হলো “মিউনিখ চুক্তি”। অবশ্য চুক্তির প্রেক্ষাপট বিচারে একে কূটনৈতিক চুক্তির চেয়ে আপস বলাই শ্রেয়। সেসময়

Read More

বাবি ইয়ার এর গণহত্যা: নাৎসি বাহিনীর নৃশংসতার এক ভয়াবহ চিত্র

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সমস্ত খুনোখুনির মধ্যেও ইউক্রেনের বাবি ইয়ার গণহত্যা একটি অন্যতম ঘটনা। ১৯৪১ সালের ২৯ সেপ্টেম্বর থেকে ৩০ সেপ্টেম্বর, নাৎসি বাহিনী অধিকৃত

Read More

মহাবীর উইলিয়ামের ইংল্যান্ড অভিযানের আদ্যোপান্ত

মধ্যুযুগে ইংল্যান্ডের শাসনামল নিয়ে আলোচনা করার শুরুতেই ‘অ্যাংলো-স্যাক্সন’ রাজত্বের কথা অবধারিতভাবে চলে আসে। ৫ম থেকে ১১শ শতাব্দী পর্যন্ত শাসন করে আসা এই

Read More

গুগল: প্রযুক্তি দুনিয়ার অনন্য এক মহারথী

বর্তমানে আমরা যেকোনো বিষয় সম্পর্কে জানতে সর্বপ্রথম বই না খুলে সার্চ ইঞ্জিন এ খুঁজি। আর এক্ষেত্রে বেশিরভাগেরই প্রথম পছন্দ Google নামের সার্চ

Read More

টেলিভিশনে প্রথমবার আমেরিকার প্রেসিডেন্সিয়াল ডিবেট

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচন মানেই টানটান উত্তেজনা আর বিশ্বব্যাপী উৎকন্ঠা। বিশ্বের সকল নামী-দামী সংবাদ মাধ্যমের চোখ তখন থাকে এই নির্বাচনের দিকে। আমেরিকান

Read More

ভাস্কো দ্য বালবোয়া: প্রশান্ত মহাসাগরের সন্ধান পাওয়া প্রথম ইউরোপিয়

একদম ছোটবেলা থেকেই আমরা পড়ে এসেছি পৃথিবীর ৩ ভাগ জল আর এক ভাগ স্থল। আর এর মাঝে সবচেয়ে বড় মহাসাগর হচ্ছে প্রশান্ত

Read More

Get Chalkboard Contents straight to your email!​